৫০% ছাড়

রাসূলুল্লাহ সা.-এর পদাঙ্ক অনুসরণ

৳  400.00 ৳  240.00

লেখক ǀ ড. তারিক রমাদান

বাংলা অনুবাদ ǀ মুহাম্মাদ আদম আলী
প্রথম প্রকাশ এপ্রিল ২০১৬‎
পৃষ্ঠা সংখ্যা: ৩০৪ (Hard Cover)

ISBN : 978-984-91176-9-8

Compare

Description

তারিক রমাদান পাশ্চাত্যের একজন বিখ্যাত মুসলিম পণ্ডিত ও দার্শনিক। তিনি এ গ্রন্থে সকলের জন্য ইসলামের সর্বশেষ ‎নবী ও রাসূল হযরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের জীবনী চমৎকারভাবে বর্ণনা করেছেন যেখানে মানব ‎ইতিহাসের সবচেয়ে বেশি প্রভাবশালী একজন ব্যক্তিত্বের আধ্যাত্মিক ও নৈতিক শিক্ষা তুলে ধরা হয়েছে। রাসূলুল্লাহ ‎সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের জীবন ছিল একই সাথে ঘটনাবহুল, সংগ্রামমূখর এবং গভীর প্রেরণার। চিরায়ত সত্যের ‎আলোয় প্রখর চিন্তাশক্তি ও উপলব্ধিতে লেখক এখানে দেখিয়েছেন যে, কিভাবে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ‎শতাব্দির পর শতাব্দী ধরে অথবা কেমন করে আবার সমকালীন মানুষের জন্য উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত, একমাত্র আদর্শ এবং ‎অনুপ্রেরণার উৎস হতে পারেন। তার আরেকটি প্রচেষ্টা ছিল, কিভাবে একজন মুসলমান আনুষ্ঠানিক ধর্ম পালন থেকে মুক্ত ‎হয়ে আধ্যাত্মিক উৎকর্ষতা ও সফলতায় সত্যিকারভাবে ইসলামের অনুসারী হিসেবে সমাজে তার উপস্থিতিকে আরও ‎নিশ্চিত করতে পারে। ‎

[rasulullah SM. er podangko onusoron,rasul]

1 review for রাসূলুল্লাহ সা.-এর পদাঙ্ক অনুসরণ

  1. admin

    [রিভিউ লেখক : MD Maruf Ali ]

    তারিক রমাদান একজন সুইস শিক্ষাবিদ, বুদ্ধজীবী, লেখক এবং বিখ্যাত মুসলিম পণ্ডিত। তিনি ২৬ আগস্ট ১৯৬২ সালে সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় জন্মগ্রহণ করেন। এ গ্রন্থে লেখক সকলের জন্য রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের জীবনী চমৎকারভাবে বর্ণনা করেছেন যেখানে মানব ইতিহাসের সবচেয়ে বেশি প্রভাবশালী একজন ব্যক্তিত্বের আধ্যাত্মিক ও নৈতিক শিক্ষা তুলে ধরা হয়েছে।
    .
    অনুবাদক বইটি সম্বন্ধে বলেছেন, ‘এ বইয়ের বক্তব্য একেবারে নতুন নয়। আবার প্রাচীনতার প্রাচীরে সীমায়িত নয়। তার দৃষ্টিভঙ্গি, দৃষ্টান্তের সামঞ্জস্যতা এবং ভাষার শৈল্পিক ব্যবহার জ্ঞানের পরিশীলিত বোধকে ভিন্ন মাত্রায় উন্নীত করবে, ইসলামের শ্বাশত সৌন্দর্যকে উপলব্ধিতে সহায়তা করবে, ব্যক্তিকে আত্ম-অনুসন্ধানে ব্যাপৃত করবে এবং সর্বোপরি রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের আধ্যাত্মিক ও নৈতিক শিক্ষায় অনুপ্রাণিত করে তার উপর অন্তরের ঈমানকে কার্যকরী ও অর্থবহ করে তুলবে।’
    .
    রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের জীবন ছিল একই সাথে ঘটনাবহুল, সংগ্রামমূখর এবং গভীর প্রেরণার। এ গ্রন্থে তার ব্যতিক্রম জীবনের উল্লেখযোগ্য ঘটনার প্রেক্ষিতে বহুল আলোচিত বিষয়সমূহ যেমন, গরীবের প্রতি আচরণ, নারীদের ভূমিকা, ইসলামে অপরাধীদের শাস্তির বিধান, যুদ্ধ এবং ভিন্ন ধর্মাবলম্বীদের সঙ্গে সম্পর্ক ইত্যাদি প্রসঙ্গে গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা করা হয়েছে।
    .
    চিরায়ত সত্যের আলোয় প্রখর চিন্তাশক্তি ও উপলব্ধিতে লেখক এখানে দেখিয়েছেন যে, কিভাবে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম শতাব্দির পর শতাব্দী ধরে অথবা কেমন করে আবার সমকালীন মানুষের জন্য উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত, একমাত্র আদর্শ এবং অনুপ্রেরণার উৎস হতে পারেন। তার আরেকটি প্রচেষ্টা ছিল, কিভাবে একজন মুসলমান আনুষ্ঠানিক ধর্ম পালন থেকে মুক্ত হয়ে আধ্যাত্মিক উৎকর্ষতা ও সফলতায় সত্যিকারভাবে ইসলামের অনুসারী হিসেবে সমাজে তার উপস্থিতিকে আরও নিশ্চিত করতে পারে।
    .
    এই বস্তুনিষ্ঠ জীবনীগ্রন্থের মাধ্যমে তারিক রমাদান মুসলমানদের কাছে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের জীবনকে নতুন অভিজ্ঞতা ও চেতনায় উপস্থাপন করেছেন। ইসলামের আধ্যাত্মিক ও নৈতিক ধনাঢ্যতার দিক উন্মোচিত করে তিনি একই সাথে অমুসলিমদেরকেও পরম সত্যের দিকে আহ্বান করেছেন।
    .
    ব্যক্তিগত মতামতঃ তারিক রমাদানের প্রসিদ্ধ কিতাব In the Footsteps of the Prophet Muhammad-এর বাংলা অনুবাদ করে নাম রাখা হয়েছে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের পদাঙ্ক অনুসরণ।
    .
    নবীজীর জীবন এত ব্যাপ্তিময় তা কোনো কিতাবের পক্ষে ধারণ করা অসম্ভব। জীবনের শিক্ষাও অনুসন্ধিৎসুদের জন্য অনবরত আবিষ্কারের উৎস। বইটিতে নবীজীর জীবনের বেশিরভাগ ঘটনা বর্ণনা করা হয়েছে সংক্ষিপ্তভাবে। ঘটনার পর্যালোচনা, আলোচনা, ব্যাখ্যা-বিশ্লেষন, প্রাপ্ত শিক্ষা, আধুনিক সমাজে তার প্রয়োগ ও যথার্থতা ইত্যাদিই প্রধান আকর্ষণ।
    .
    চালিকা শক্তি অন্তর। সংকীর্ণ অন্তরটা প্রশস্ত করতে আধ্যাত্মিক শিক্ষার প্রয়োজন আছে। বইটিতে সাহাবীদের জীবনের কিছু ঘটনার প্রতি দৃষ্টিপাত করা হয়েছে যেখানে এ শিক্ষার প্রতিফলন ঘটেছে। হযরত মুহাম্মাদ সাঃ কে তাঁরা সরাসরি শিক্ষক হিসেবে পেয়েছিলেন যাঁর পবিত্র জীবন ও মহান চরিত্রের পূর্ণতা দেখে তারা শিক্ষা নিয়েছিলেন এবং নিজেদের সংশোধন করে নিয়েছিলেন। নিজেকে পবিত্র রাখার জন্য নবীজীর পবিত্র জীবন ও সংযম থেকে তাঁরা যে শিক্ষা পেয়েছিলেন তাই তাঁদের অন্তরকে শেষ পর্যন্ত প্রশস্ত রেখেছিল এবং আধ্যাত্মিক শিক্ষাও তাঁদের মধ্যে পূর্ণতা পেয়েছিল।
    .
    আধ্যাত্মিক মাইন্ড নিয়ে পনের অধ্যায়ে লেখক বইটি লিখেছেন। চমৎকারভাবে এই শিক্ষা ফুটিয়ে তোলা হয়েছে এবং এর উপকারিতার বাস্তব নমুনা হিসেবে সাহাবীদের দেখানো হয়েছে। ..বইটি মুসলিম অমুসলিম উভয়ের কথা ভেবেই লেখা। ইহুদি-খৃস্টানদের বিশ্বাসের সঙ্গে ইসলাম ধর্মের মূলনীতির পার্থক্য সংক্ষিপ্তভাবে বর্ণনা করা হয়েছে যা প্রসঙ্গক্রমে প্রয়োজনীয় ছিল।
    .
    বইটিতে সবচেয়ে বিস্তারিতভাবে আলোচনা করা হয়েছে জিহাদের। অমুসলিমরা জিহাদ নিয়ে যেসব প্রশ্ন উত্থাপন করে থাকে সাধারণত, সরাসরি উত্তর না দিয়েও আলোচনায় বিষয়গুলো পরিষ্কারভাবে তুলে ধরা হয়েছে যার জন্য পাঠক সহজেই বুঝতে পারবেন ন্যায়ের পক্ষে কারা ছিল।
    .
    মুহাম্মাদ আদম আলী খুব পরিশ্রম করে বইটি অনুবাদ করেছেন। উনার ভাষায় : ‘দর্শন শাস্ত্রের বই অনুবাদ করা কঠিন। এ কিতাবটি দর্শনশাস্ত্র নয়, তবে তা একজন দার্শনিকের লেখা।’ ..পড়লেই বুঝতে পারবেন কত সুন্দর শব্দচয়নে বইখানা রচিত। সাবলীল অনুবাদ ও বানানে ভুল না থাকায় বইটি খুশিমনে পড়েছি। আশাকরি, আপনারাও পড়বেন ৩০২ পৃষ্ঠার বইটি।

Add a review

Your email address will not be published. Required fields are marked *