৫০% ছাড়

তোমাকেই বলছি হে আরব

৳  200.00 ৳  100.00

মূল : সায়্যিদ আবুল হাসান আলী নদভী রহ.
অনুবাদ : মাওলানা মঈনুদ্দীন তাওহীদ
পৃষ্ঠা : ১০৪; ৭০ গ্রাম অফসেট, কালারড (Hard Binding)
প্রথম প্রকাশ : জুন ২০১৯
ISBN :978-984-91175-6-8

Compare

Description

সায়্যিদ আবুল হাসান আলী নদভী রহ.—এক বিস্ময়কর প্রতিভা। ইতিহাসে এরূপ মহামনিষীর আগমনই ইসলামের ‎শাশ্বত সৌন্দর্য ও গ্রহণযোগ্যতা বার বার পৃথিবীর কাছে তুলে ধরে। ইসলাম থেকে দূরে সরতে সরতে একসময় মানুষ ‎তার নিজের পরিচয়ই ভুলে যায়। দুনিয়ার ব্যস্ততা আর পরকাল বিমুখতা তাকে বেঘোরে দীর্ঘ আশার অতলে তলিয়ে ‎‎ফেলে। সেই তলানি থেকে জাগিয়ে তোলার জন্য প্রয়োজন হয় এক অনিরুদ্ধ কণ্ঠস্বর, এক জ্বালাময়ী ঈমানী চেতনার ‎বলিষ্ঠ উচ্চারণ। এই চেতনার বাস্তব প্রতিমূর্তি ছিলেন সায়্যিদ আবুল হাসান আলী নদভী রহ.। তার সমুজ্জ্বল জীবন ও ‎কর্মকা- গোটা পৃথিবীতে এক জাগরণ তৈরি করেছিল যা এখনো একইভাবে ক্রিয়াশীল। আর এ পথে তার ভাষণগুলো ‎মানুষের হৃদয়ে যুগের পর যুগ ধরে ইসলামের আহ্বানে বেদিশার দিশা হয়ে আছে। মুসলমানদের বর্তমান অবস্থা ‎অবলোকন করে তারই কিছু আবেগ ও বেদনামিশ্রিত ভাষণ তোমাকে বলছি হে আরব গ্রন্থে বর্ণনা করা হয়েছে। ‎
গ্রন্থটি মূলত ইসমাঈয়্যাত এর অনুবাদকে কেন্দ্র করে রচিত হলেও এতে আরও কিছু ভাষণ বিভিন্ন কিতাব ও রেসালা থেকে সংযুক্ত ‎করা হয়েছে। ফলে আরবে প্রদত্ত ভাষণের সঙ্গে এ উপমহাদেশের বিভিন্ন স্থানে প্রদত্ত ভাষণও রয়েছে। উনবিংশ শতাব্দির মাঝামাঝি ‎এসব ভাষণে ঐ সময়ের রাজনৈতিক ও সামাজিক প্রেক্ষাপটে ইসলাম চর্চা ও বাস্তবতার নানা অসঙ্গতি তুলে ধরা হয়েছে। মুসলমানদের ‎সার্বিক দুর্গতির কারণ চিহ্নিত করার পাশাপাশি ভবিষ্যৎ কর্মপন্থাও বর্ণনা করা হয়েছে। বর্তমান বিশ্বের সার্বিক পরিস্থিতির তেমন ‎‎কোনো উন্নতি হয়নি। বরং পুরো বিশ্ব মুসলমানদের বিরুদ্ধে জোট বেধে ইসলাম ও মুসলমানদের নিশ্চিহ্ন করার কাজে মেতে উঠেছে। ‎ফলে গ্রন্থটি তার যুগের মানুষকে যেমন আলোড়িত করেছিল, এখনো একইভাবে এসব বক্তব্য মুসলমানদের আশার আলো হয়ে আছে। ‎এটি স্বতঃসিদ্ধ যে, আরবেই ইসলামের সূচনা এবং এখনো ইসলামের কেন্দ্রভূমি হয়ে আছে। তার পরামর্শ ও আশা-আকাক্সক্ষা অনুযায়ী ‎আরব বিশ্ব জেগে উঠলেই বিশ্বের মানচিত্রে ইসলামের পতাকা সমুন্নিত হবে। সেখান থেকেই পরিবর্তন সূচিত হওয়া প্রয়োজন। একদিন ‎হবেও। তখন মুসলিম জাতি ফিরে পাবে তাদের হারানো ঐতিহ্য ও সম্মান। ‎

[tomakei bolchi he arob, tomake i bolchi he arob, tomakey bolchi he arob]

1 review for তোমাকেই বলছি হে আরব

  1. admin

    বুক রিভিও লিখেছেন : Ismail H. Numan

    বইটির রিভিউ দেয়ার ব্যাপারে এত সাহস নেই, তবু কিছু বলার প্রয়াসে………..

    “” সায়্যিদ আবুল হাসান আলী নদভী রহ. এমন মানুষ ছিলেন, যিনি তাঁর যুগ থেকে বর্তমান পর্যন্ত প্রত্যেক জাগ্রত বিবেকের অধিকারী মানুষের কাছে আকাশের নক্ষত্রের মত প্রজ্জলিত হয়ে আছেন।
    তিনি এমনই একজন মহামনীষী ছিলেন, যিনি তার কলম-কথার মাধ্যমে ইসলামের শ্বাশ্বত সৌন্দর্য্য ও গ্রহনযোগ্যতা ফুটিয়েছেন পৃথিবীর সমটতে।

    পৃথিবী যখন তলানীর দিকে ধাবমান, তখন সেখান থেকে তাকে উদ্ধারের জন্য তাঁর চিন্তাধারা, আহ্বান, লেখনী যুগের পর যুগ অবিস্বরণীয় হয়ে থাকবে।
    তিনি মুসলমানদের ঐতিহ্যের দিকে ফিরে তাকিয়েছিলেন বলেই উপলব্ধি করেছিলেন মুসলমানদের সম্মুখে কি রয়েছে।

    এই মহামনীষী সম্পর্কে ক্ষুদ্র কথায় কিছু বলা অন্যায় বলে বিবেচিত হবে। যাই হোক, বক্ষমান এই গ্রন্থটিতে যে কথাগুলো স্থান পেয়েছে,

    – কয়েক যুগ আগেই তিনি অনুভব করেছিলেন, মুসলমানদের সম্মুখ কর্মপন্থা কিভাবে হবে।
    বলে গিয়েছেন কোন দিকে মুসলমানদের উন্নতি, আর কিভাবে হয় অবনতি।
    আরবেই যেহেতু ইসলামের সূচনা হয়েছিল এবং সেটাই তাঁর কেন্দ্রভূমি, সেই পেক্ষাপট থেকেই বক্ষমান গ্রন্থটি সাজানো। যদি আরব জেগে উঠে, তাহলে সমগ্র আরব-আজম জেগে উঠবে। এজন্যই এ আহ্বান।
    তিনি আরবকে জেগে উঠার কথা বলেই থেমে যাননি, ক্রমান্বয়ে তিনি বিভিন্ন মুসলিম জনপদকে হৃদয়ের তপ্ত আহ্বান জানিয়ে এসেছেন।
    তার প্রতিটি কথায় রয়েছে মুসলমানদের জন্য আশার আলো।
    তিনি যেখানেই গিয়েছেন, সেখানেই আলোচনা করেছেন, মুসলমানদের হারানো ঐতিহ্য পুন:উদ্ধারের। এবং রেখে গিয়েছেন অমূল্য কিছু বার্তা, যা অনুসরণ করলে মুসলমানরা ফিরে পাবে তাদের হারানো গৌরবময় সোনালী অধ্যায়। আবারও তাঁদের হাতে আসবে পৃথিবীর শাসনভার।
    তিনি প্রতিটি জনপদের সমৃদ্ধির কথা যেভাবে বলেছেন, তার লেখনশৈলী দ্বারা মনে হয়, তিনি বুঝি সেখানকার বাসিন্দা ছিলেন। তার প্রতিটি কথাই সুদৃঢ় চিন্তার ফসল। অথচ তিনি সেসব অঞ্চলের বাসিন্দা ছিলেন না। উপমহাদেশের বাসিন্দা হয়েও এত সুন্দর কিছু আসলে তার জন্যই মানায়।

    আরবরা বিলাসিতায় মত্ত। তাদের বিলাসিতাই মৌলিক অবক্ষয়ের কারণ। তাদের বিলাসিতা যেন পার্শ্ববর্তী মুসলিম জনপদে ছড়িয়ে না পরে এজন্য তঁদেরকে সতর্কবাণী দিয়েছেন।
    আমাদের সম্মুখে আজ সেই সতর্কবার্তার প্রতিফলন ঘটছে।
    বিস্ময় লাগে, ইসলাম যেভাবে আরবের পর ধাপে ধাপে অন্যদিকে ছড়িয়েছে, এভাবেই তাঁর আহ্বানের মর্মবাণীও আবৃত করেছে সবাইকে।
    সবগুলো কথাই যেন বাগান পরিচর্চার প্রয়াসে মালির চিন্তানির্গত সাজানো আয়োজন।

    ☞আজ প্রতিফলিত হচ্ছে মহানবী সা.এর সেই অমীয় বাণী,
    “হে আমার সাহাবারা! আমি তোমাদের উপর দারিদ্রতার ভয় করিনা, আমার ভয় হয়, না জানি পূর্ববর্তীদের মত তোমাদের মাঝে সম্পদের প্রাচুর্য চলে আসে আর তা তোমাদের ধ্বংস করে দেয়। ”

    পুরোবিশ্ব মুসলিম নিধনের কার্যকলাপ চালাচ্ছে। এদিকে মুসলমানরা বিলাসিতার ঘুমে আচ্ছন্ন।
    তারা আজ হতাশায় ধুকছে। হতাশার মূল কারণ হল, আমাদের পুনরায় জেগে উঠার মত হাতিয়ার নেই।

    তবে এতটুকু বলব, সেই চৌদ্দশ বছর আগে কিভাবে তাঁরা জেগে উঠেছিল? তাঁদের অবস্থা তো বর্তমানের তুলনায় খুবই নগণ্য ছিলো।
    আজো খনিজসম্পদ, উর্বর শস্যভূমি এসব মুসলমাদের অনুকূলেই। তবে এসব খুড়ে খাবলে নিয়ে যাচ্ছে ভিন্নজাতি।
    মুসলমানরা অসহায়ত্ব বরণ করে, ভয়ে আড়ষ্ট হয়ে তাঁদের হাতর তুলে দিচ্ছে। এসব ব্যবহার করে তাঁরাই মুসলমানদের উপর নিপীড়ন চালিয়ে যাচ্ছে। ভুলে গেছি আমাদের জাতিসত্তা।

    ☞এক মূখ্যমন্ত্রীর ভাষায় আমাদের নির্যাতনের কারণ ও চিত্র এভাবে উঠে এসেছে,
    “কানুন যদি এভাবে ধ্বংস হয়ে যায়, আমরা তা নিরব দর্শকের ন্যায় দেখতে পারিনা! নীতি যদি ক্রীড়ানক হয়ে যায়, আদালতের রায় যদি তামাশার বস্তুতে পরিণত হয়, নিরাপত্তা যদি বাচ্চদের খেলনা হয়ে যায়, তাহলে এদেশে জ্ঞান সাধনা করা, মানবতা আর সভ্যতার সেবা করা সম্ভব না! জনগণ তো নিজের ঘরেই শান্তিতে বসবাস করতে পারেনা! ”

    তাঁর একথাগুলো খুবই তাৎপর্যবাহী।

    যা বলেছি এতটুকু নিজের ভাবাবেগ থেকেই।
    এ বইটির অনুবাদক মঈন ভাইকে ধন্যবাদ দিয়ে একথাই বলব, আমরা বাংলা ভাষাভাষী হওয়ায় তার অনুবাদকৃত বইটি খুবই প্রয়োজনীয় ও উপকারী।
    প্রতিটি মানুষ যদি বইটি একবার পড়ে, তাঁর আত্মা জাগ্রত হওয়ার পাশাপাশি নৈতিক আদর্শ পুনঃউদ্ধারের শক্তিও তৈরি হবে। ইনশাআল্লাহ।

    #বইকে ঘিরে আমার অনুভূতি….
    আমার চিরাচরিত অভ্যাসের একটি হল, যখনই কোন নতুন বই বাজারে আসে, যে বই নিজেকে উজ্জীবিত করে তোলে। সেসব বই সংগ্রহ করার প্রয়াস চালিয়ে যাই।
    বক্ষমান এ বইটিও এর একটি। বইটি যেভাবে অনুবাদক ভাই সাজিয়েছেন, তাঁর সৃজনশীলতা যে কত অগ্রগামী, এ বইটি না পড়লে মুক্তচিন্তা করা সম্ভব নয়। ধাপেধাপে সাজানো প্রতিটি লেখা সানন্দে সহজপাঠ্য।
    পরিশেষে, সামনে যদি কিছু ভুল সংশোধন করে নব আঙ্গিকে সাজানো হয়, এই প্রত্যাশায় অনুবাদক মঈন ভাইকে আবারও সাধুবাদ জানাচ্ছি, তারঅনুবাদকর্মের একটি ফসল, আরবি থেকে বাংলায় অনুবাদ করে জাতির সামনে সময় উপযোগী হিসেবে তুলে ধরার জন্য।

Add a review

Your email address will not be published. Required fields are marked *